শিরোনাম
ঢাকা-১৮ আসনকে স্মার্ট আসন হিসেবে গড়তে কাজ করে যাচ্ছি: খসরু চৌধুরী এমপি ড.কর্নেল (অব.) অলি আহমদ বীরবিক্রম এলডিপির কার্যালয়ে জনগণের উদ্যেশে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন দক্ষিণখানে রিকশাচালকদের মাঝে পানি বিতরণ করলেন খন্দকার সাজ্জাদ তীব্র তাপপ্রবাহে রিকশাচালকদের মাঝে পানি ও স্যালাইন বিতরণ ১০ দিনে তুরাগ থানার পরিবর্তনের ছোঁয়া কালীগঞ্জের নাগরিতে সন্ত্রাসীদের তান্ডব উত্তরায় প্রকৌশলীকে পিটিয়ে হত্যা, মূল হোতা নাজমুল ধরাছোঁয়ার বাইরে উত্তরায় বফেট লঞ্চের শুভ উদ্বোধন উত্তরা ৪৭ নং ওয়ার্ড এ খন্দকার সাজ্জাদ হোসেনের ঈদের নামাজ আদায় উত্তরখানে খসরু চৌধুরী এমপির ঈদ উপহার বিতরণ
বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪, ০৩:১৯ অপরাহ্ন

সত্যিই কি তলিয়ে যাবে স্বপ্নের শহর ভেনিস?

রিপোটারের নাম / ১৬ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে
প্রকাশের সময় : শনিবার, ৩০ মার্চ, ২০২৪

ইউরোপের অন্যতম জাদুকরী শহর ইতালির ভেনিস। বহু বছর ধরে গোটা বিশ্বের পর্যটকদের আকর্ষণ করে আসছে মনোমুগ্ধকর এই শহরটি। যাকে ইতালির ভাসমান শহরও বলা হয়। কিন্তু এ ভাসমান শহর এবার পানির নিচে ডুবে যাওয়ার পথে। সম্প্রতি এমনটিই জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। বলছেন, জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে শহরটির অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখা কঠিন হয়ে পড়েছে। অনেক জলবায়ু বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, ২১০০ সালের মধ্যে পানির নিচে তলিয়ে যেতে পারে ইতালির স্বপ্নের শহর ভেনিস। তবে শহরটিকে বাঁচিয়ে রাখতে অনেক কিছু করা যেতে পারে বলেও জানিয়েছেন তারা। ডয়চে ভেলে।

ভেনিস ডুবে যাওয়ার খবর নতুন কিছু নয়। এ মায়ার শহর যে ডুবে যাবে তা শত শত বছর আগেই জানা গেছে। সমুদ্রপৃষ্ঠে একটি উপহ্রদে নির্মিত শহরটি সব সময় বন্যার ঝুঁকির সম্মুখীন হয়েছে। দিন বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে সমস্যাটি তীব্র হয়ে উঠতে থাকে। ফলে ২০ শতকের মাঝামাঝি সময়েই কর্তৃপক্ষ বুঝতে পেরেছিল যে ভেনিস ডুবে যাচ্ছে। ভেনিস কেন ডুবছে তা ব্যাখ্যা করার জন্য বেশ কয়েকটি তত্ত্ব সামনে এনেছেন বিশেষজ্ঞরা।

ভেনিস ডুবে যাওয়ার অন্যতম কারণ, এর চার পাশ পানি দিয়ে বেষ্টিত হওয়ায় ভবনগুলোর অত্যধিক ওজনের কারণে এটি ধীরে ধীরে নিচে চলে যাচ্ছে। এছাড়াও ক্রমবর্ধমান বৈশ্বিক তাপমাত্রার সঙ্গে সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতাও শহরটিকে ব্যাপকভাবে প্রভাবিত করে। বিজ্ঞানীরা বলছেন, বৈশ্বিক উষ্ণতা বৃদ্ধির ফলে বিশ্বের গড় সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধি পাচ্ছে। গত দেড়শ বছরে ভেনিস ২০ সেন্টিমিটার নেমে গেছে।

যদিও ভেনিসের ডুবে যাওয়ার সঠিক সময়সীমা জানা যায়নি। তবে অনেক জলবায়ু বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ২১০০ সালের মধ্যে শহরটি পানির নিচে ডুবে যেতে পারে। শহরটিকে বাঁচাতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন তারা। ভেনিসের আশপাশে এবং অনেক প্রকল্প চলমান থাকায় এগুলো এই শহরে অনুপ্রবেশকারী পানির অগ্রগতিকে মন্থর করতে পারে। বর্তমানে এটিকে রক্ষা করা স্থানীয়, রাজ্য এবং ইউরোপীয় কর্মকর্তাদের জন্য একটি শীর্ষ উদ্বেগের বিষয় হয়ে উঠেছে।

ইতোমধ্যেই বন্যা রোধ করতে ভেনিসের চারপাশে প্রতিরক্ষামূলক বাঁধ স্থাপন করা হয়েছে। এছাড়াও মোজে প্রণালির মাধ্যমে ভেনিস কিছুটা রক্ষা পেয়েছে। পানি থেকে সুরক্ষার সর্বশেষ প্রচেষ্টা হিসাবে মোজে প্রণালিতে ৭৮টি ইস্পাতের প্রাচীর সৃষ্টি করা হয়েছে। এটি উপহ্রদটিকে সমুদ্র থেকে বিচ্ছিন্ন করে রাখতে সহায়তা করে। ভেনিসের বন্যা সুরক্ষা কমিশনার এলিজাবেতা স্পিৎস বলেন, ‘মোজে না থাকলে ২০২২ সালের ২২ নভেম্বর ভেনিস অপূরণীয় ধ্বংসলীলার শিকার হতো। ইতিহাসে দ্বিতীয় উচ্চতম বন্যার স্তর সত্ত্বেও আমরা ভেনিসকে বাঁচাতে পেরেছি।’

সমুদ্রবিজ্ঞানীর গেয়র্গ উমগিসা বলেছেন, মোজে প্রণালির মাধ্যমে ভেনিস শুধু কিছুটা বাড়তি সময় পেয়েছে। তবে এই সমুদ্র গবেষকের মতে, ভেনিস অনন্তকাল টিকে থাকতে পারবে না। কোনো এক সময়ে উপহ্রদটিকে সমুদ্র থেকে বিচ্ছিন্ন করতেই হবে। তখন ভেনিসের মানুষকে কঠিন সিদ্ধান্ত নিতে হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ