শিরোনাম
ঢাকা-১৮ আসনকে স্মার্ট আসন হিসেবে গড়তে কাজ করে যাচ্ছি: খসরু চৌধুরী এমপি ড.কর্নেল (অব.) অলি আহমদ বীরবিক্রম এলডিপির কার্যালয়ে জনগণের উদ্যেশে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন দক্ষিণখানে রিকশাচালকদের মাঝে পানি বিতরণ করলেন খন্দকার সাজ্জাদ তীব্র তাপপ্রবাহে রিকশাচালকদের মাঝে পানি ও স্যালাইন বিতরণ ১০ দিনে তুরাগ থানার পরিবর্তনের ছোঁয়া কালীগঞ্জের নাগরিতে সন্ত্রাসীদের তান্ডব উত্তরায় প্রকৌশলীকে পিটিয়ে হত্যা, মূল হোতা নাজমুল ধরাছোঁয়ার বাইরে উত্তরায় বফেট লঞ্চের শুভ উদ্বোধন উত্তরা ৪৭ নং ওয়ার্ড এ খন্দকার সাজ্জাদ হোসেনের ঈদের নামাজ আদায় উত্তরখানে খসরু চৌধুরী এমপির ঈদ উপহার বিতরণ
বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪, ১০:২২ অপরাহ্ন

মুম্বাই বন্দরে আটক চীনের জাহাজে ছিল ‘পারমাণবিক পণ্য’

রিপোটারের নাম / ১৮ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে
প্রকাশের সময় : শনিবার, ২ মার্চ, ২০২৪

মুম্বাইয়ের নব সেভা সমুদ্রবন্দরে আটক জাহাজে পাচার করা হচ্ছিল ‘পারমাণবিক পণ্য’। তদন্তের পর এমনটাই দাবি করছেন গোয়েন্দারা। গত ২৩ জানুয়ারি জাহাজটিকে আটক করা হয়। শনিবার শুল্ক দফতরের আধিকারিকরা জানিয়েছেন, জাহাজে যে পণ্য উদ্ধার হয়েছে তা পারমাণবিক এবং ক্ষেপণাস্ত্র প্রকল্পে ব্যবহার হয়। খবর ইন্ডিয়া টুডের

গত ১৭ জানুয়ারি চীন থেকে করাচির উদ্দেশে জাহাজটি রওনা দেয়। গোপন সূত্রে শুল্ক দফতরের কর্মকর্তারা খবর পান মাল্টার পতাকা লাগানো ‘সিএমএ সিজিএম অ্যাটিলা’ নামে একটি জাহাজে সন্দেহজনক কিছু নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। সেই খবর পেয়েই নব সেবা বন্দরে জাহাজটিকে আটক করা হয়।

শুল্ক দফতর এবং ডিআরডিও-র একটি দল জাহাজের ওই পণ্য খতিয়ে দেখে। শুল্ক দফতর সূত্রে খবর, জাহাজে কম্পিউটার নিউমেরিক্যাল কন্ট্রোল মেশিন (সিএনসি) নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল। কোনো পারমাণবিক প্রকল্পের জন্য এ ধরনের যন্ত্রকে ব্যবহার করার উদ্দেশ্য ছিল বলে সন্দেহ করা হচ্ছে। তবে বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, যে যন্ত্রগুলো পাকিস্তানে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল, সেগুলো ক্ষেপণাস্ত্র তৈরির কাজে ব্যবহার করার পরিকল্পনা ছিল পাকিস্তানের।

বিশেষজ্ঞরা আরও জানাচ্ছেন, যে সিএনসি যন্ত্রগুলো ওই জাহাজে পাওয়া গেছে, এ ধরনের যন্ত্র তাদের পারমাণবিক প্রকল্পের জন্য ব্যবহার করেছিল উত্তর কোরিয়া।

সূত্রের খবর, জাহাজ এবং পণ্যের নথি খতিয়ে দেখার পর জানা গেছে, জাহাজটি সাংবাই জেএক্সই গ্লোবাল লজিস্টিক্স নামে একটি সংস্থার। পণ্য পাঠানো হচ্ছিল পাকিস্তান উইংস প্রাইভেট লিমিটেড নামে সিয়ালকোটের একটি সংস্থায়। তবে আরও তদন্ত করে গোয়েন্দারা জানতে পেরেছে, জাহাজটি তাইউয়ান মাইনিং ইমপোর্ট অ্যান্ড এক্সপোর্ট নামে একটি সংস্থার। পাকিস্তানের কসমস ইঞ্জিনিয়ারিং নামে একটি সংস্থায় ওই পণ্য পাঠানো হচ্ছিল।

এই প্রথম নয়, এর আগেও চীন থেকে পাকিস্তানে পাঠানো সেনাসামগ্রী বাজেয়াপ্ত হয়েছিল ভারতের জলসীমায়। ঘটনাচক্রে সেই সময় থেকেই কসমস ইঞ্জিনিয়ারিং সংস্থাটি নজরে ছিল গোয়েন্দাদের। এ সংস্থাটি প্রতিরক্ষা সংক্রান্ত পণ্য সরবরাহ করে পাকিস্তানে। ইটালির তৈরি থার্মোইলেক্ট্রিক সরঞ্জাম পাকিস্তানে নিয়ে যাওয়ার সময় ২০২২ সালের ১২ মার্চ একটি জাহাজ বাজেয়াপ্ত হয়। গোপনে সেই পণ্য নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল। কিন্তু তার আগেই জাহাজটিকে নব সেবা বন্দরে আটকে দেওয়া হয়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ