শিরোনাম
ঢাকা-১৮ আসনকে স্মার্ট আসন হিসেবে গড়তে কাজ করে যাচ্ছি: খসরু চৌধুরী এমপি ড.কর্নেল (অব.) অলি আহমদ বীরবিক্রম এলডিপির কার্যালয়ে জনগণের উদ্যেশে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন দক্ষিণখানে রিকশাচালকদের মাঝে পানি বিতরণ করলেন খন্দকার সাজ্জাদ তীব্র তাপপ্রবাহে রিকশাচালকদের মাঝে পানি ও স্যালাইন বিতরণ ১০ দিনে তুরাগ থানার পরিবর্তনের ছোঁয়া কালীগঞ্জের নাগরিতে সন্ত্রাসীদের তান্ডব উত্তরায় প্রকৌশলীকে পিটিয়ে হত্যা, মূল হোতা নাজমুল ধরাছোঁয়ার বাইরে উত্তরায় বফেট লঞ্চের শুভ উদ্বোধন উত্তরা ৪৭ নং ওয়ার্ড এ খন্দকার সাজ্জাদ হোসেনের ঈদের নামাজ আদায় উত্তরখানে খসরু চৌধুরী এমপির ঈদ উপহার বিতরণ
সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ১১:৫২ পূর্বাহ্ন

বিমান প্রতিমন্ত্রীর আয় কমলেও বেড়েছে নগদ টাকা

রিপোটারের নাম / ৭৯ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে
প্রকাশের সময় : রবিবার, ২৪ ডিসেম্বর, ২০২৩

নিজস্ব প্রতিবেদক: দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সিলেট বিভাগে আওয়ামী লীগের প্রার্থীদের কারও সম্পদ গত পাঁচ বছরে বেড়েছে, কারও কমেছে। প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থানমন্ত্রী ইমরান আহমদ ও সাবেক শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদের আয় বেড়েছে। বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলীর বার্ষিক আয় কমলেও নগদ জমার পরিমাণ প্রায় চার গুণ বেড়েছে।

সিলেট-৪ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থানমন্ত্রী ইমরান আহমদের বার্ষিক আয় হলফনামা অনুযায়ী বেড়েছে ১৪ লাখ ৮৮ হাজার ৮২৮ টাকা। অস্থাবর সম্পদ বেড়েছে ৪ কোটি ৫২ লাখ ৮৫ হাজার ৮৭১ টাকার। গত সংসদ নির্বাচনের হলফনামায় তাঁর স্ত্রীর নামে স্থাবর-অস্থাবর সম্পদের পরিমাণ ছিল ২ কোটি ৭৪ লাখ ৩৭ হাজার ৩৬৪ টাকা। তা বেড়ে হয়েছে ৩ কোটি ৩ লাখ ৫৭ হাজার ৭০৯ টাকা। মন্ত্রীর নিজের রয়েছে ৪ দশমিক ৪৭ একর ও স্ত্রীর নামে ১০৫ শতক কৃষি জমি। অকৃষি জমি নিজ নামে ৪ দশমিক ৫ একর, স্ত্রীর নামে ৫ কাঠা। এছাড়া স্ত্রীর নামে ১ কোটি ১ লাখ ৫৬ হাজার ৫০৪ টাকা মূল্যের একটি বাড়ি রয়েছে।

সিলেট-৬ আসনের সংসদ সদস্য ও সাবেক শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ তাঁর হলফনামায় বাৎসরিক আয় দেখিয়েছেন ৫০ লাখ ৩০ হাজার ১১৩ টাকা। তবে ২০১৮ সালে তাঁর আয় ছিল ৩২ লাখ ১০ হাজার ৪১০ টাকা। আয় বাড়লেও কমেছে অস্থাবর সম্পদ। পাঁচ বছর আগে অস্থাবর সম্পদ ছিল ২ কোটি ১৬ লাখ ৩৩ হাজার ৩৯ টাকার। এখন তা এক কোটি ৯ লাখ ৯৩ হাজার ১৩২ টাকার।

সিলেট বিভাগের হবিগঞ্জ-৪ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী ও বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মো. মাহবুব আলীর বার্ষিক আয় ৫ বছরের ব্যবধানে ২০ লাখ টাকা কমেছে। কিন্তু আর্থিক প্রতিষ্ঠানে নগদ জমার পরিমাণ প্রায় চার গুণ বেড়েছে। ২০১৮ সালের হলফনামা অনুযায়ী তাঁর বার্ষিক আয় ৫৬ লাখ ৪৮ হাজার ৯০৫ টাকা। এবার কমে হয়েছে ৩৬ লাখ ১৮ হাজার ৫৮৬ টাকা। পাঁচ বছর আগে আর্থিক প্রতিষ্ঠানে নগদ জমার পরিমাণ ৮০ লাখ ৭ হাজার ৫১৬ টাকা। এবার তা বেড়ে ৩ কোটি ১৮ লাখ ৮৮ হাজার ৬১৮ টাকা হয়েছে। কোটি টাকা মূল্যের গাড়ি রয়েছে দুটি।

হবিগঞ্জ-৩ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়নে টানা তিনবারের সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট আবু জাহিরের আয় ও সম্পদ মিলে ১৫ বছরে বেড়েছে ৯ গুণ। আর তার স্ত্রীর আয় ও সম্পদ বেড়েছে সাড়ে ২৬ গুণ। ২০০৮ সালের নির্বাচনে তিনি হলফনামায় নিজের নামে ৭৩ লাখ ৬৮ হাজার ৫৯৪ টাকার সম্পদ দেখিয়েছেন। স্ত্রীর নামে দেখিয়েছেন ৯ লাখ ৭০ হাজার ৫৮৪ টাকার সম্পত্তি। বর্তমানে স্থাবর-অস্থাবর সব মিলিয়ে মোট সম্পত্তি দাঁড়িয়েছে ৬ কোটি ৬২ লাখ ৭৪ হাজার ৭২১ টাকার। স্ত্রীর নামে মোট সম্পত্তি আছে ২ কোটি ৫৭ লাখ ৯৩ হাজার ৭৯ টাকার।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ