Main Menu

সড়ক দুর্ঘটনায় মানুষের পাশে ট্রমালিংক’র ১ বছর

Daudkandi photo-26-11-15

নিজস্ব প্রতিনিধি॥ – ‘ট্রমালিংক বিপদে আমরা’ ঢাকা-চট্রগ্রাম মহাসড়কের দাউদকান্দিতে হতে তীরচর পর্যন্ত বিগত ১ বছরে ২০ কিলোমিটারে ১৬২ টি সড়ক দুর্ঘটনায় পতিতদের সেবা দান করে প্রশংসা কুড়িয়েছে। এমনই একটি ঘটনা ২৫ নভেম্বর ২০১৫, রাত ২ টা ৪৬ মিনিটে কুমিল্লার দাউদকান্দি উপজেলার রায়পুর বাস স্ট্যান্ডে হঠাৎ সামনে একটি দ্রুতগামী বাস চলে আসায় মুখোমুখি সংঘর্ষ এড়ানোর জন্য ট্রাক নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার পাশে রায়পুর দীঘিতে পড়ে যায় । এতে ট্রাকের চালক অক্ষত থাকলেও সহযোগি মামুন (২২) গুরুতর আহত হন । ট্রমালিংকের স্বেচ্ছাসেবক নয়ন এর ব্যবসা প্রতিষ্ঠান মহাসড়কের পাশে থাকায় গভীর রাতে দুর্ঘটনার শব্দ শুনে দ্রুত ঘটনাস্থলে ছুটে যান এবং আহত ব্যক্তিকে ট্রাক থেকে উদ্ধার করেন পরবর্তীতে তার দোকানে থাকা ট্রমালিংক এর ফাস্ট এইড বক্স থেকে প্রয়োজনীয় উপকরণ দিয়ে আহত ব্যক্তিকে প্রাথমিক সেবা প্রদান করেন এবং তাকে বাড়িতে পাঠানো ব্যবস্থা করেন। এ ঘটনায় ভূমিকা পালনের মধ্য দিয়ে কুমিল্লা জেলার দাউদকান্দি থেকে ইলিয়টগঞ্জের তীরচর পর্যন্ত সর্বমোট ২০ কিঃমিঃ এলাকায় বিভিন্ন ধরনের ১৬২ টি দুর্ঘটনায় ট্রমালিংক-এর বিপদে আমরা স্বেচ্ছাসেবকরা ভূমিকা পালন করেছেন ।
স্বেচ্ছাশ্রমের ভিত্তিতে তাৎক্ষণিক প্রাথমিক চিকিৎসা প্রদান করে জরুরিভিত্তিতে রোগীদেরকে হাসপাতালে প্রেরণের ক্ষেত্রেও তারা প্রয়োজনীয় উদ্যোগ ও সহযোগিতা করেছেন। একই সাথে কলসেন্টার (হটলাইন নম্বর ০৯৬৭৮৭৭৫৫৭৭) থেকেও রোগীদেরকে হাসপাতালে প্রেরণের ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে । শুধু তাই নয় বড় ধরনের দুর্ঘটনার ক্ষেত্রে কলসেন্টার থেকে ফায়ারব্রিগেডে ফোন করে বিনামূল্যে এ্যাম্বুলেন্স সার্ভিসের মাধ্যমে রোগীকে দ্রুত হাসপাতালে প্রেরণের ব্যবস্থাপনাও নিশ্চিত করা হয়েছে। নিয়মিতভাবে এ সকল তথ্য স্থানীয় থানা ও হাইওয়ে থানাসহ প্রশাসনকে অবহিতও করা হয়েছে।
উল্লেখ্য যে, গত ২৩ নভেম্বর, ২০১৪ সন্ধ্যা ৬টা থেকে পরীক্ষামূলক ভাবে দেশের সর্বোচ্চ দুর্ঘটনাপ্রবণ হাইওয়েগুলোর মধ্যে অন্যতম ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে এই কার্যক্রম শুরু হয়েছিল । ২৩ নভেম্বর পরীক্ষামূলক কার্যক্রম শুরু হলেও নির্ধারিত এলাকায় প্রথম দুর্ঘটনা সংঘটিত হয় দাউদকান্দির গাজীপুরে ২৫ নভেম্বর, ২০১৪ ভোর ৪ টা ০৩ মিনিটে। উক্ত দুর্ঘটনায় সহায়তার মধ্যদিয়ে বিগত ১ বছরে ২০ কিলোমিটার এলাকায় ১৬২ টি দুর্ঘটনায় মোট ২৬৫ জন আহত ব্যক্তি বিপদে আমরা স্বেচ্ছাসেবকদের কাছে থেকে বিনামূল্যে সেবা পেয়েছেন। এক্ষেত্রে এলাকার বিভিন্ন স্তরের মানুষও আন্তরিকভাবে সহযোগিতা করেছেন। এ কাজে ট্রমালিংক থেকে বিশেষভাবে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ১৩৪ জন স্বেচ্ছাসেবক বিশেষ ভূমিকা পালন করেছে ।

শেয়ার করুন: Share on FacebookShare on Google+Tweet about this on TwitterShare on LinkedIn





Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked as *

*

Facebook

Twitter